Log in

I forgot my password

Who is online?
In total there are 18 users online :: 0 Registered, 0 Hidden and 18 Guests

None

[ View the whole list ]


Most users ever online was 46 on Sat Feb 01, 2014 10:42 am
RSS feeds


Yahoo! 
MSN 
AOL 
Netvibes 
Bloglines 



কমলির কামাল/কামদেব

View previous topic View next topic Go down

20140607

Post 

কমলির কামাল/কামদেব






দোতলা বাড়ি।এক তলায় কমলারা তিন ঘর ভাড়াটে ,দোতলায় থাকে বাড়িওলা। ছোট কমন বাথরুম। সে জন্য বাড়িওলা সামনেরচাতালে টিন দিয়ে ঘিরে মেয়েদের জন্য একটা বাথ রুম করে দিয়েছে।দরজায় চটের পর্দা ঝোলান। উপরে ছাউনি
নেই, দিনের বেলা রোদ ঝলমল করে।কর্তারা অফিস চলে গেলে খাওয়া-দাওয়া করে কমলা পুষ্প-দির ঘরে বা পুষ্প-দি কমলার ঘরে আসে গল্প করতে।আর এক ঘর ভাড়াটে বয়স্ক স্বামী-স্ত্রী, প্রয়োজন ছাড়া খুব একটা কথা বলে না,নিজের মত থাকে।পুষ্প-দির বয়স বছর চল্লিশ কমলার চেয়ে দশ বছরের বড়।এক মেয়ে কলেজে পড়ে। কমলার ছেলে স্থানীয় প্রাইমারি স্কুলে যায়।কমলার থেকে বড় হলেও পুষ্প-দির সঙ্গে তার সম্পর্ক বন্ধুর মত।সব কথা হয়।যেমন,কি রান্না করলি, কাল কোথায় গেছিলি,কে এসেছিলরে সেদিন,কবে
মাসিক হল,রাতে কাজ হয়েছে কিনা?পুষ্প-দি চুদিয়ে সুখ পায়না। দাদা বেশিক্ষন করতে পারে না,অল্পেতে হাপিয়ে যায়।কমলা বলে, আজকাল কি সব তেল-ফেল বেরিয়েছে,ওর বাড়ায় মালিশ কর তা হলে বড় হবে।
পুষ্প-দি বলে,আমি বলেছি কিন্তু ছেলেরা মেয়েদের কথা শুনলে তো?
একদিন বাথ রুম করতে গিয়ে পাছা খুলে বসেছে।পাছায় রোদ এসে পড়েছে।হঠাৎ পাছা ছায়ায় ঢেকে গেল। কি ব্যাপার?চোখ তুলে
উপরে তাকাতে দেখে,ছাদে কে যেন সরে গেল।কাপড়টা একটু নামিয়ে দিয়ে পেচ্ছাপ সেরে জল দিয়ে গুদ ধুয়ে ঘরে ফিরে গেল কমলা।অনুমান করার চেষ্টা করে,কার আবার গাঁড় দেখার শখ হল?নাকি ভুল দেখল।
পুষ্প-দিকে সব ব্যাপারটা বলতে পুষ্প-দি হেসে কুটি কুটি। তোর গাঁড় দেখছিল?
--আমি কি তাই বললাম? আমার ভুলও হতে পারে।কমলা বলে।
--না,তুই ঠিক দেখেছিস।ও আমার ভাই-পো।
--ভাই-পো!
--ওর বাবাকে দাদা বলি আর নিলু আমাকে বলে পিসি।
--বাড়িওয়ালার ছেলে নীলু?
--তুমি জানতে ? আর কিছু বলোনি?
--কি বলবো বল ? ছেলে মানুষ --ওতো শুধু দেখে,গাঁড় মারতে তো চায়নি ?দেখলে কি গাঁড় ক্ষযে যাবে ?
--তোমার সব ব্যাপারে ঠাট্টা!
বাড়িওয়ালার দুই মেয়ে এক ছেলে।নীলু সবার ছোট,এম.এ.পড়ে। পাতলা ছিপছিপে চেহারা,ভীতু স্বভাবের। ছাদের ঘরে পড়াশুনা
করে আর গাঁড় দেখে।কমলার মনে একটা দুষ্টু বুদ্ধি খেলে যায়।
--কিরে কি ভাবছিস? পুষ্প-দি জিজ্ঞেস করে।
--কিছু না।
কমলা ভাবে,লেখাপড়া জানা শিক্ষিত ছেলে মাগীদের গাঁড় দেখে লুকিয়ে লুকিয়ে--এ কেমন স্বভাব? পুরুষগুলোর পছন্দ বিচিত্র। তার স্বামী পুলিশে কাজ করে,গুদের চেয়ে গাঁড় বেশি পছন্দ। কথায় বলে, "স্ত্রী চরিত্র দেবা না জানে " আমি তো বলব,পুরুষ চরিত্রই বা কম কিসে?
পুষ্প-দির একটা চিঠি এসে পড়ে আছে,দেওয়া হয়নি।পুষ্প-দিকে ডাকতে পুষ্প-দি বলল,আসছি দাড়া ভীষণ বাথ রুম পেয়েছে। কমলা ছুটে চলে গেল ছাদে।পা টিপে টিপে গিয়ে দেখে নীলু ছাদের কার্নিশের কাছে দাঁড়িয়ে নীচে ঝুকে কি দেখছে।তার পর যা দেখল তার চক্ষু ছানাবড়া।বারমুডার চেন খুলে বার করল শোল মাছের মত বাড়াটা।উপর থেকে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে পুষ্প-দির বিশাল গাঁড়,সুর্যের আলো গাড়ের উপর পড়ে পিছলাচ্ছে। নীলু বাড়াটা জুত করে মুঠোয় ধরে এদিক-ওদিক দেখতে কমলার সাথে চোখাচুখি। সুরুৎ করে
বাড়াটা প্যাণ্টের মধ্যে চালান করে দিয়ে বলে, কি বৌদি তুমি....? কিছু বলবে? নীলু স্বাভাবিক হতে চেষ্টা করে।
--হ্যাঁ বলবো, তুমি একবার আমার ঘরে এসো ? কমলা কিছু দেখেছে ওকে বুঝতে দিল না।নীচে নেমে এল।পুষ্প-দি গুদ ধুয়ে কমলার ঘরে এসে বসে আছে।
--কি রে কোথায় গেছিলি? ডাকছিলি কেন?কমলাকে দেখে পুষ্প-দি বলল।
--তোমার একটা চিঠি আমার ঘরে ফেলে গেছে।
--আমার চিঠি ?আমাকে আবার কে চিঠি দিল?
--তোমার নাগর।মজা করে বলে কমলা।
পুষ্প-দি চিঠিটা ঊলটেপালটে দেখে বলল,দিনাজপুর থেকেলিখেছে আমার ননদ। এমন সময় নীলু ঢোকে।নীলুকে দেখে পুষ্প-দি একটু অবাক।
--এসো।এখানে বসো। ওকে সোফায় বসতে বলল।
নীলু আড়চোখে পুষ্প-দিকে দেখে সোফায় বসল।
--পুষ্প-দি দরজাটা বন্ধ করে দাও তো।কমলা বলে।
পুষ্প বুঝতে পারেনা কমলা কি করতে চায়।নীলুও অবাক হয়, একটু ঘাবড়ে যায়। কমলা-বউদির বর কলকাতা পুলিশের এস.আই.।এ বাড়ির সবাই এমন কি বাবা পর্যন্ তকমলাবৌদিদের খাতির করে চলে।
পুষ্প-দি দরজা বন্ধ করে বলে, তোর মতলবটা কি বলতো কমলা।
--এবার চুপ করে দেখ,তাহলে সব বুঝতে পারবে।হ্যা নীলু, তুমি ছাদে কি করো?
--কি করবো? পড়াশুনা....।নীলু মুখে হাসি আনার চেষ্টা করে।
--সেতো ঠিক আছে।আর কি করো? নীলু বুঝতে পারে না জল কোন দিকে গড়াচ্ছে। মাথা নীচু করে চুপ করে থাকে।
--কি হল জবাব দাও।কি কর?
--ক্ষমা করে দাও,আর দেখবো না।কেদে ফেলে এমন অবস্থা।
--ওসব ন্যাকামিতে কিছু হবে না। থানা-পুলিশ হবে তখন সব গড় গড় করে বলবে। সত্যি কথা বল তোমার কোন ভয় নেই। তুমি উপরে কি করো?
কমলা আর পুষ্প-দি চোখাচুখি হয়।থানা-পুলিশ শুনে নীলু ভয় পেয়ে যায়।বাবা-মা জানবে,পাড়া-প্রতিবেশি জানবে মুখদেখাবার জো থাকবেনা।পুষ্প-দি মুখ টিপে হাসে।নীলু মুখ তুলে তাকায়।
--তুমি পাছা দেখ না?
--হুম।নীলু মাথা নীচু করে বলে।
--কেন? পাছা দেখতে তোমার ভাল লাগে?
--পাছায় মেয়েদের সৌন্দর্য।
--শুধু আমাদের দেখেছো না আরো---?
--আমার মায়ের পাছা দেখেছি।
--আর--?
--আমার দিদিদের দেখেছি।
--মায়ের গুদ দেখনি?
--ভাল দেখতে পাইনি।কথা শুনে পুষ্প-দি মুখ লুকিয়ে হাসে,ভাবে কমলাটা খুব ফাজিল।
--কেন ,মায়ের গুদ ভাল করে দেখতে পাওনি?
--মায়ের গুদে খুব বাল, বালে ঢাকা বলে দেখতে পাইনি।
--তোমার গুদ দেখতে ইচ্ছে হয়?
মাথা নীচু করে মুখ টিপে হাসে নীলু, কোন উত্তর দেয় না।
--কি কথা বলছ না যে? কমলা ধমকে ওঠে।ঘাড় নেড়ে সম্মতি জানায় নীলু।
--তোমার কোন পাছা ভালো লেগেছে বেশি ?
নীলু সঙ্কটে পড়েযায়।সত্যি কথা বলতে কি পিসির পাছার গড়ন বেশ সুন্দর,হরতনের মত।কিন্তু সে কথা কি করে বলে।এক বার আড় চোখে পিসিকে দেখে।
--কি পুষ্প-দির পাছা?
--হুম।কথাটা পুষ্প মুখে স্বীকার না করলেও বেশ ভাল লাগে।
কমলা পুষ্প-দিকে বলে,কিগো তোমার দাম বেড়ে গেল।
--ধুস, এই বয়সে আমাকে আর নাড়া দেয় না।পুষ্প ঊড়িয়ে দেবার চেষ্টা করে। কমলা মনক্ষুন্ন হয়।মনে মনে সে গুদ দিয়ে জয় করার কথা ভাবে।সোফায় পা-তুলে বসে কাপড়টা হাটু অবধি তুলে দেয়।নীলুকে জিজ্ঞেস করে,গুদ দেখবে?
নীলু আড়চোখে দেখে বৌদি গুদ চেতিয়ে আছে।দুটো আঙ্গুল দিয়ে ক্ষুদ্রোষ্ঠ ফাক করে ধরেছে।ভীষণ দেখার ইচ্ছে আবার সরাসরি
তাকাতে পারছে না।এই আকস্মিকতায় পুষ্পও কিছুটা অবাক। পুষ্পর শরীর কেমন করছে।
--সত্যি কমলা মিথ্যে বলব না,তোর গুদের গড়নটা বেশ।পুষ্পর কথায় কর্ণপাত করে না কমলা,বলে,এই নীলু দেখ ,ভাল করে দেখ।নীলু তাকায় ,তার বারমুডার মধ্যে আন্দোলন শুরু।কমলা তাকে কাছে ডাকে,অত দূর থেকে কি দেখছিস,কাছে এসে দেখ।
নীলু কমলার সোফার নীচে বসে দেখে। কমলা জিজ্ঞেস করে, কিরে কেমন?
--ভাল।নীলুর কথায় মুগ্ধতা।
--ভাল কিরে শুকে দেখ।নীলু নাকটা গুদের কাছে নিয়ে ঘ্রান নেয়।
--কেমন?
--দারুন!কি মিষ্টি গন্ধ তোমার গুদে বৌদি।পুষ্প মনে মনে ভাবে ছেণালী হচ্ছে।গুদের ব্যাপারে বাড়াবাড়ি পুষ্পর অপছন্দ কারণ তার গুদ অতি ব্যাবহারে হা-হয়ে থাকে।টাইট গুদ দেখলে তার গা জ্বালা করে।
কমলা জিজ্ঞেস করে,খুব তোয়াজ করতে শিখেছ? মিষ্টি না তিতো--কি করে বুঝলে ?জিভ দিয়ে দেখেছো?
নীলু জিভ বের করে গুদের দিকে নিয়ে যায়,কমালা ওর মাথাটা চেপে ধরে।নীলু জিভ দিয়ে গুদ চাটতে শুরু করল।একটা পা নীলুর পিঠে তুলে দিল কমলা। নীলু মন দিয়ে চুষে চলেছে।পুষ্প কাপড় তুলে হাত দিয়ে গুদ টীপতে লাগল।কমলা কি নীলুকে দিয়ে চোদাবে ?ভাব-গতিক দেখে তাই মনে হচ্ছে।ছোড়াটার বাড়া দেখে পুষ্পরও খুব পছন্দ।এইটকু ছেলের বাড়া এত বড় !সব মাগীর পছন্দ হবে তা
স্বাভাবিক।বাছুর যেমন গোমাতার দুপায়ের ফাকে চুকচুক করে দুধ চোষে তেমনি নীলুও কমলার উরু সন্ধিতে গুদ চুষছে।পুষ্প গুম হয়ে বসে আছে।থমথম করছে মুখ। কমলা বলে,পুষ্প-দি রাগ করেছো?
পুষ্প বলে ,রাগ করবো কোন দুঃখে। এসব তোরা নতুন করছিস খুব উৎসাহ।আমার বিয়ের পর ভাশুর-ঠাকুর এমন চোষা চুষেছিল চোষার টানে জরায়ু বেরিয়ে এসেছিল।তোরা হলে দেখতে হত না।
---ব্যস ব্যস,উর-এ উর-এ আঃ-আ-আ--।বলতে বলতে জল ছেড়ে দিল কমলা।নীল এক ফোটাও বাইরে পড়তে দিল না।সবটা
খেয়ে নিল। পুষ্পর এসব দেখে গা জ্বলে যাচ্ছিল।আদেখলেপনা। দেখ কেমন কেলিয়ে পড়েছে।গোঙ্গাতে গোঙ্গাতে বলল,এবার তোমার পিসিরটা চুষে দাও।পুষ্প প্রস্তুত ছিল।নীল পিসির কাপড়টা হাটুর উপরে তুলে দেয়ে দুটো হাটু দু-দিকে চাপ দিতে গুদটা কেলিয়ে গেল।মুখটা গুদের কাছে নিয়ে যেতে বাসি মাংসের বটকা গন্ধ নাকে এসে লাগে। গা-গুলিয়ে যায়।কিছু বলতে পারে না।একটু আগে এত সুন্দর স্বাদের পর পচা শামুকের গন্ধ কার ভাল লাগে?তবু দম বন্ধ করে চুষে চলে,কিছুটা আল্গোছে।মাগী নিয়মিত বাল কামায়।পা-দুটো আয়েশ করে ছেদরে দিয়েছে। কমলা-বৌদিকে বলতে হবে এরপর পিসিকে চুষতে পারবে না। মুখ লাগাতে ঘেন্না করছে,এত অপ্রবৃত্তিতে কোন কাজ হয়? কমলা দেখছে,নীলুর জন্য মায়া হচ্ছে।কিছু বলা সম্ভব নয়,তা হলে পুষ্প-দি ভুল বুঝবে।আচমকা পুষ্প-দি ঊঠে পড়ল।নীলু বলল,কি হল পিসি?
--আমার ভীষণ হিসি পেয়েছে....সর সর ---।বলতে বলতে দৌড় বাথরুমের দিকে। পুষ্প-দির দৌড় দেখে কমলার হাসি পেয়ে গেল। নীলু কমলাকে বলল,আমাকে এক গেলাস জল দেবে বৌদি?আমার নাকে ধক করে একটা দুর্গন্ধ এসে লাগল। কমলা জিজ্ঞেস করে,ঠাকুর-পো তোমার মুখে কি বিশ্রী গন্ধ!
--সেই জন্য তো জল চাইছি।পিসির গুদে বিশ্রী গন্ধ।এখনও গা-গুলোচ্ছে।
কমলা তাড়াতাড়ি জল এনে দিল। ও ভাল করে গুদ চুষছিল না, কেমন ছাড়াছাড়া ভাব। তখনই খটকা লেগেছিল। নীলু মুখে জল নিয়ে কুল কুচি করল বার কয়েক। তারপর ঢকঢক করে জল খেল। কমলার মুখের কাছে মুখ এনে জিজ্ঞেস করল,আর গন্ধ পাচ্ছো?
-- না,সেই গন্ধ নেই।
কিন্তু মুখের কাছে মুখ পেয়ে লোভ সামলাতে পারে না কমলা। চকাস করে,ওর মুখে চুমু দিল।নীলুও সাড়াদিল। কমলা হাত দিয়ে ওর বাড়াটা বার করে নিল।লাঙ্গলের মত সাইজ।চামড়াটা ছাড়াল, মুঠো ভরে যায়। যেন তপ্ত লোহার ডাণ্ডা।দুমড়ে মুচড়ে ছিড়ে ফেলতে
ইচ্ছে করছে।নীলু আতকে ওঠে, কি করছো বউদি?
--আমার জমীন চাষ করবে না? কমলা বলে।
--পাগল! শেষে বেধে গেলে মুখ দেখাতে পারবে না।
--বাধবে না।আমি রোজ ওষুধ খাচ্ছি। না চুদলে তোমাকে ছাড়ব নাকি? গুদ আমার তাওয়া হযে আছে।টেনে ওর জামা খুলে ফেলে,
নিজের নাইটিও। পুষ্প-দি এসে দাড়িয়েছে দরজায়,জিজ্ঞেস করে,কি দেখছো?
--দেখছি তোর কামাল! পুষ্প-দি বলে। দুটো উদোম মানুষ ঘরের মধ্যে,পুষ্প-দি অবাক হয়ে ওদের কাণ্ডকার খানা দেখছে। জড়াজড়ি
করতে করতে নীলুকে খাটের উপর চিৎ করে ফেলে।জানু-সন্ধি হতে ঝুলছে বাড়াটা,একটু ভয় ভয় করছে।গুদের কোন ক্ষতি না হয়। দু-পা দুপাশে দিয়ে ওর পেটের উপর বসে কমলা।নীলু জিজ্ঞেস করে,বউদি তুমি চুদবে?
--কেন পারবো না?
--না, তা নয়।ঠিক আছে চোদো।
--তুমি বাড়াটা শক্ত করে রাখো।এতে তোমার পরিশ্রম কম হবে।আমিও ইচ্ছেমত ঘুরুয়ে ঘুরিয়ে সুখ নিতে পারবো।
নীলু দু-হাতে বৌদির পাছাটা ধরে। কমলা নীচু হয়ে চুমু দেয়। পাছাটা একটু উচু করে গুদের মুখে বাড়াটা সেট করে শরীরটা ছেড়ে
দিতে আমুল গেথে গেল গুদের মধ্যে।কে জানে কোথায় গিয়ে ঠেকল।আবার উচু করে আবার চেপে বসে। নীলুর দিকে ঝুকে জোরে
জোরে ঠাপন দিতে লাগল।
নীলু বলল, বউদি একটু নীচু হওনা,তোমার দুধটা চুষি।
নীচু হয়ে নিজের ম্যানাটা ওর মুখে ভরে দিল।পাছা নাড়িয়ে ঠাপিয়ে চলছে।নীলুর শূলে বিদ্ধ হচ্ছে।শরীরের প্রতিটি কোষে কোষে সুখ ছড়িয়ে পড়ছে। আপনা হতে বেড়ে চলেছে ঠাপের গতি।ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে গুদের দেওয়ালের প্রতিটী জায়গায় বাড়ার ঘষা লাগাচ্ছে।নীলু নীচ থেকে তল ঠাপ দিচ্ছে।পুষ্প-দি অবাক হয়ে দেখছে,গজ-কচ্ছপের লড়াই।
নিঃশ্বাস ভারী হয়ে এল।গুদের মধ্যে বিষাক্ত কীটের নৃত্য চলছে।যতক্ষন না রস পেটে পড়বে থামবে না।হঠাৎ নীলু কমলাকে ঘুরিয়ে
বৌদির উপর চড়ে বসল।পাগলের মত ঠাপাতে লাগল।
--ঠাকুর-পো আস্তে আস্তে।তুমি কি আমার গুদ ফাটাবে নাকি?একটু আদর করে করো.....।
--তুমি আমার সোনা মনা। নীলু এবার ঠাপানো বন্ধ করে,বাড়াটা গুদে গাথাই থাকে। কমলার কাধ টিপতে লাগল।আয়েশে কমলার চোখ বুজে আসে।নীলু জিজ্ঞেস করে,বউদি ভাল লাগছে?
--হুম।চোখ বন্ধ করে কমলা সাড়া দেয়।
--তুমি পা-দুটো আমার কাধে তুলে দাও।কমলা পা-দুটো নীলুর কাধে তুলে দেয়। নীলু কমলার থাই মেসেজ করে দেয়।
--ঠাকুর-পো আমার ঘুম পেয়ে যাচ্ছে।কি সুখ দিচ্ছ তুমি আমাকে।আর আমাকে চুদবে না?
--এবার চুদবো সোনা। নীলু আবার ঠাপাতে শুরু করল।
--উঃ-উ-উ-আঃ-আ-আ-কি সুখ--কিসুখ---।কমলা শিৎকার দিতে থাকে।কিছুক্ষন চোদার পর নীলু গোঙ্গাতে গোঙ্গাতে বলে,আর পারছি না বউদি বে-র-ই -ইয়ে-গে---ল---উঃ-রে-উঃরে-উরে--আঃ-আঃ--।নীলু কমলার বুকে নেতিয়ে পড়ল।তপ্ত বীর্য জরায়ুর মুখে পড়তে কমলাও কুলকুল করে জল ছেড়ে দিল।
ওরা দেখলো পুষ্প-দি গোসা করে চলে গেছে।পরস্পর মুখ চাওয়ে-চাওয়ি করে।কমলা ফিক করে হেসে দিল।
নীলু জিজ্ঞেস করে,বৌদি এবার যাই?
--যাবি কিরে,আমাকে একটু চুষতে দিবি না?কমলা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করে।
--এখন?অনেক সময় লাগবে,এইমাত্র এককাপ বের হল।নীলু সঙ্কুচিত ভাবে বলে।
--লাগুক,তোর কোনো কাজ আছে এখন?
--না,তা নয় মানে--।অগত্যা নীলুকে ঠ্যাং ছড়িয়ে বসতে হল।তার ভয় পুষ্প-পিসি এসে আবার না চোদাতে বলে?
কমলা পুরো বাড়াটা মুখে নিয়ে চপ চপ করে চোষা শুরু করে দিয়েছে।নীলু দু-হাতে বৌদির মাথা ধরে আছে।মুখ দিয়ে গ্যাজলা বের হচ্ছে কমলার।
কোনদিকে মন নেই মাথা নাড়িয়ে নাড়িয়ে চলছে চোষণ কাণ্ড।শির শির করছে নীলুর সারা শরীর।পিঠের উপর দিয়ে হাত বাড়িয়ে দু-হাতে কমলার পাছায় ম্যাসেজ দিতে থাকে।বুকের নীচে হাত ঢুকিয়ে চেপে ধরে কমলার মাই।কমলা বাড়াটা বের করে নীলুকে দেখে।আবার বাড়াটা মুখে পুরে নেয়।
একসময় নীলু পা দিয়ে কমলাকে জড়িয়ে ধরে গোঙ্গাতে গোঙ্গাতে বলে,আঃ-আঃ বৌদি --পাচি না--পাচি না--বেরিয়ে গেল।কমলা
কৎ-কৎ করে গিলে নিল নীলুর ঘন বীর্য।চেটে চেটে বাড়াটা পরিস্কার করে দেয়।
avatar
kumdev

Posts : 55
Join date : 2014-06-06
Age : 67
Location : Kolkata

View user profile

Back to top Go down

Share this post on: Excite BookmarksDiggRedditDel.icio.usGoogleLiveSlashdotNetscapeTechnoratiStumbleUponNewsvineFurlYahooSmarking

 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum