Log in

I forgot my password

Who is online?
In total there are 11 users online :: 0 Registered, 0 Hidden and 11 Guests

None

[ View the whole list ]


Most users ever online was 110 on Tue Aug 01, 2017 7:51 am
RSS feeds


Yahoo! 
MSN 
AOL 
Netvibes 
Bloglines 



জীবনের অন্যপৃষ্ঠা /কামদেব

Page 2 of 2 Previous  1, 2

View previous topic View next topic Go down

20160919

Post 

জীবনের অন্যপৃষ্ঠা /কামদেব








জীবনের অন্য পৃষ্ঠা \\ কামদেব


এবং কয়েকঘর শিখ পাঞ্জাবি ছাড়া সবাই বাঙালি। দিবাকর আমার দাদা,আমরা দুই ভাই ।বাবা থাকতে থাকতেই দিবাদার বিয়ে হয়।তিন বছর আগে মাকে বিধবা করে বাবা চলে গেল আমি তখন মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়ে রেজাল্টের অপেক্ষা করছি।দিবাদা বৌদির শরীরে বীজ রোপন করেছে অঙ্কুরিত হয়ে পাতা মেলার অপেক্ষায়।শ্রাদ্ধ শান্তি মেটার পর একদিন রাতে  বৌদির ব্যথা উঠল। অতরাতে কোথায় ট্যাক্সি?এদিক-ওদিক ঘুরছি, খুশীদি জিজ্ঞেস করল,কিরে রতি এত রাতে? ঘটনা শুনে খুশিদি মানে খুশবন্ত কাউর গাড়ি নিয়ে এল নিজে গাড়ি চালিয়ে বৌদিকে পৌছে দিল শিশু মঙ্গল হাসপাতালে। কদিন পর শিশু নিয়ে বৌদি চলে গেল বাপের বাড়ি। মাসখানেক পর দিবাদাও চলে গেল বাড়ী ছেড়ে।মাধ্যমিকের রেজাল্ট বের হল।পাশ করলেও নতুণ সমস্যা, পড়াশুনায় ইতি টানতে হবে এখানেই?উমানাথ এই সময় একটা টিউশনি ঠিক করে দিল। উমানাথ বয়সে  কয়েক বছরের বড় হলেও আমাদের সঙ্গে বন্ধুর মত মেশে। মিলিটারি আণ্টির মেয়ে জেনি ক্লাস থ্রিতে পড়ে।মুনমুন আণ্টির স্বামী কর্ণেল জয়ন্ত রায় আর্মিতে চাকরি করেন।বছরে এক-আধবার বাড়ীতে আসেন। সেজন্য কর্ণেল রায়ের স্ত্রী পাড়ায় মিলিটারি আণ্টি নামে পরিচিত।সন্ধ্যেবেলা টিফিন,মাসে তিরিশ টাকা আমার কাছে তখন অনেক।মিলিটারি আণ্টি মেয়ে নিয়ে একা থাকেন টিভি ভিডিও দেখে সময় কাটান,সপ্রতিভ নিজেই সালোয়ার কামিজ পরে বাজারঘাট করেন,ইয়ংদের খুব মাই ডিয়ার। খুশিদিও সালোয়ার কামিজ পরে,পাঞ্জাবী মেয়ে বয়স কম কিন্তু সেসময় বাঙালি বয়স্কা মহিলাদের ঐ পোশাক খুব একটা চল ছিল না।কে কি ভাবল তাতে মিলিটারি আণ্টির কিছু যায় আসে না।কেউ কিছু বলতেও সাহস পেত না,সবাই সমীহ করে চলতো।
প্রথম কয়েকমাস দিবাদা কিছু টাকা পাঠিয়েছিল,সংসারের চাপে টাকা পাঠাবার সময় করে উঠতে পারে না।আয় বলতে বাবার পারিবারিক পেনশন।আমার বন্ধু-বান্ধব সবাই উচ্চ মাধ্যমিকে বিজ্ঞান বিভাগে আমিই একমাত্র কলা বিভাগে ভর্তি হলাম। ওদের ধারণা সোমলতাই এর কারণ।যারা যেমন তারা তেমনই ভাববে।
সোমলতা আমাদের পাড়ার ডাক্তার শরদিন্দু ব্যানার্জির মেয়ে।সোমুকে আমার ভাল লাগতো কিন্তু ও আমাকে পাত্তাই দিতনা।সে জন্য মনে আমার কোনো ক্ষোভ ছিল না।
সাধারণ কেরাণীর ছেলে আমি,ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন দেখা শোভা পায় না।এখন অবস্থা আরও করুণ।তবু রাস্তা ঘাটে সোমুকে দেখলে মনে অদ্ভুত একটা অনুভুতির সঞ্চার হতো মানে ঠিক বুঝিয়ে বলতে পারব না।পাশ কাটিয়ে চলে যাবার পর আকুল দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকতাম পিছন ফিরে একবার দেখে কিনা?আস্তে আস্তে মিলিয়ে যেত একবারও ঘুরে দেখতো না।
অবশ্য ছোটো বেলা থেকে একটা স্বপ্ন মনের অগোচরে বাসা বেঁধেছিল--লেখক হবো।
দারিদ্রের মধ্য থেকে উঠে এসেছে অনেক প্রতিষ্টিত লেখক এরকম অনেক কাহিনী আমাকে প্রেরণা দেয়।একদিন একটা গল্প লিখে বন্ধুদের পড়ে শোনালাম। নির্মল প্রেমের গল্প।নায়িকার নাম সৌমি।কোনো কিছু ভেবে এই নাম দিইনি কিন্তু বন্ধুরা গল্প কেমন হয়েছে তার ধারে কাছে না গিয়ে জিজ্ঞেস করল,এ্যাই সৌমি কে রে?
বুঝতে পারলাম চামারকে দিয়ে কামারের কাজ হয়না।ওরা ধরে নিল সোমলতার কথা ভেবেই নায়িকার নাম দিয়েছি সৌমি।সেদিন থেকে  ওরা আমার সঙ্গে সোমুর নাম জড়িয়ে ঠাট্টা-ইয়ার্কি শুরু করল।সোমুর কানে এসব কথা গেলে লজ্জার শেষ থাকবে না। সত্যি কথা বলতে কি ওদের জন্যই সোমু আমার মনে জায়গা করে নিল।
সকালে ঘুম থেকে উঠে নীরেনদার যোগা ক্লাস।বাসায় ফিরে স্নান খাওয়া-দাওয়া সেরে কলেজ।শনি রবিবার দুপুরে ট্যুইশনি।সন্ধ্যে বেলা এদিক-ওদিক ঘুরে পড়তে বসা এই ছিল রত্নাকরের সারাদিনের রুটিন।অন্য সময় সারা যতিনদাস পল্লী টো-টো করে ঘুরে বেড়ানো।

নীরেনদার যোগ ব্যায়ামের ক্লাস থেকে বেরিয়ে রত্নাকর দেখল  রঞ্জাআন্টি দুলতে দুলতে আসছে্ন।একহাতে বাজারের থলে অন্য হাতে লাঠি।মাধ্যমিক পাস করার পর নীরেনদার যোগ ব্যায়াম  ক্লাসে ভর্তি হয়েছিল,এবার উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে কলেজে ভর্তি হয়েছে।ভাবছে এবার ছেড়ে দেবে।নীরেনদা কেমন মেয়েলি ধরণের,হাবুদার সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক আছে।রত্নাকরের থেকে বয়সে বড় হলেও হাবু্দাও নীরেনদার ছাত্র।একদিন হাবুদা আসেনি ক্লাস শেষ হতে নীরেনদা শুয়ে পড়ে বলল, রতু একটু ম্যাসাজ করে দেত।
মুখের উপর না বলতে পারেনা।নীরেনদার বুকটা মেয়েদের মত ফোলা ফোলা।ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে বুকে মোচড় দিতে লাগল।ঘরে কেউ নেই কেমন অস্বস্তি হয়।রঞ্জাআণ্টি কাছে এসে বলেন,এখানে দাঁড়িয়ে?
--তোমাকে দেখে দাড়ালাম।তুমি বাজারে গেছিলে?
--আমি না গেলে কে যাবে?
রত্নাকর হাত থেকে থলি নিয়ে বলল,চলো তোমাকে পৌছে দিই।
বছর দুই হল সুখেন্দু মুখার্জি মারা গেছেন।ফ্লাটে তারপর থেকে একাই থাকে রঞ্জাআণ্টি।রত্নাকরের মায়ের বয়সী কি কয়েক বছরের ছোট হবে।সুখেন্দু মুখার্জি একটা বাণিজ্যিক সংস্থায় বড় চাকুরে ছিলেন।গাড়ি ছিল,নিজে ড্রাইভ করে অফিস যেতেন।পাড়ায় কারো সঙ্গে মিশতেন না,একটু উন্নাসিক প্রকৃতির।সেই সুখেন্দু মুখার্জির বউ সুরঞ্জনা মুখার্জির কি অবস্থা আজ। বা-পাটা ভাল করে ফেলতে পারেনা,রাস্তায় বেরোলে লাঠি থাকে সঙ্গে।
--স্বার্থপরটা আমাকে একা ফেলে চলে গেল।আণ্টির দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে এল।
রঞ্জাআণ্টির উপর মায়া হয়।দুই মেয়ে কোনো ছেলে নেই।মেয়েরা দুজনেই বিদেশে থাকে।ছেলে থাকলে নাতি বউমা নিয়ে সংসার করত।বাজারে যেতে হত না।
--আণ্টি কাকু নেই তো কি হয়েছে।তোমার কোনো অসুবিধে হলে আমাকে বলবে।
আণ্টি চোখ তুলে রত্নাকরের আপাদ মস্তক দেখে বললেন,তুই তোর কাকুর মত সব পারলে তো ভাবনা ছিল না। আণ্টির মুখে ইঙ্গিতবহ হাসি।
সেটা ঠিক কাকু উপার্জন করত,রত্নাকরের পক্ষে কি আর্থিক সহায়তা করা সম্ভব?বাবা মারা যাবার পর ফ্যামিলি পেনসনে চলে  সংসার।সাধারণ কেরাণী পেনশনও খুব বেশি নয় তা হলেও দুটি প্রাণীর কোনো অসুবিধে হয় না।যতদিন বাবা বেঁচে ছিল মায়ের প্রতি সব সময় নজর।কিছু হলে মা বলতো,ও কিছু না।বাবা বলত,কিছু না মানে?অফিস থেকে ফিরে ডাক্তার খানায় নিয়ে যাবো,রেডি হয়ে থেকো।রত্নাকর কি সেভাবে মায়ের খেয়াল রাখে?মা-ই বরং সারাক্ষণ ছেলের দিকে নজর।কোনোদিন অসময়ে শুয়ে পড়লে মা বলত,কিরে এসে শুয়ে পড়লি?কপালে হাত দিয়ে বলত,শরীর খারাপ নাতো? আণ্টি ঠিকই বলেছে।একজন মহিলার জীবনে স্বামীর কোনো বিকল্প হয়না। প্রসঙ্গ বদলাতে জিজ্ঞেস করে,তুমি লাঠি ছাড়া হাটতে পারো না?
--পারবো না কেন।আসলে  ভারী শরীর বা-পাটায় চাপ পড়লে হাটুতে টন টন করে।হাতে লাঠি থাকলে একটু ভরসা হয়।
রঞ্জাআণ্টিকে মোটা বলা যায়না কিন্তু পাছাটা বেশ মোটা,সামনের দিকে ঝুকে চলেন।গলার নীচে মাংস ঝুলে পড়েছে।চলার সময় একবার ডান কাত একবার বা কাত করে চলেন।ভারী শরীর টেনে নিয়ে চলতে কষ্ট হয়।
--আণ্টি হাটতে তোমার কষ্ট হয়?
আণ্টি  ঘুরে দাঁড়িয়ে মায়া জড়ানো চোখ তুলে আমাকে দেখেন।তারপর কি ভেবে বললেন,কষ্ট আর কি?ভালই আছি,বা-পাটা ভাজ করতে পারি না।মাঝে মাঝে হাটুটা ব্যথা করে।এই বয়সে কি যে রোগ হল।কষ্ট হলে তুই বা কি করবি?
ফ্লাটের নীচে এসে গেছি,থলিটা এগিয়ে দিয়ে বললাম,না মানে এই বাজার-টাজার।আসি আণ্টি?
--এতদুর এলি আয় এককাপ চা খেয়ে যা।
--আবার তুমি চা করবে?
--আমি করব কেন?লতিকা আছে না?
লতিকা আমাদের পাড়ার মেয়ে।রেল লাইনের ধারে বস্তিতে থাকে।রঞ্জাআণ্টির বাসায় কাজ করে। ওর স্বামী রিক্সা চালাতো,ফেলে পালিয়ে গেছে।শোনা যায় অন্য মেয়েকে নিয়ে অন্যত্র ঘর বেধেছে।স্বামী চলে যাবার পর থেকে আণ্টির ফ্লাটেই থাকে মাঝে মাঝে রেল লাইনের ধারে নিজের বাড়ি দেখে আসে ঠিকঠাক আছে কিনা। ।আণ্টির সঙ্গে সঙ্গে উপরে উঠতে লাগল।দরজা খুলে দিল লতিকা।সঙ্গে রত্নাকরকে দেখে অবাক হয়।আণ্টী থলি এগিয়ে দিয়ে বললেন,দু কাপ চা কর।
ঘরে ঢুকে সোফায় বসতে বলে আণ্টী লাঠিটা ঘরের কোনে রেখে চলে গেলেন।বেশ সাজানো গোছানো ঘর।একা থাকে বেশ পরিপাটি।সুদামকাকু থাকতে কোনোদিন এই ফ্লাটে আসেনি।পুজোর চাদা চাইতে এলেও ভিতরে আজ প্রথম।দেওয়ালে স্লিম টিভি,নীচে ডিভিডি ইত্যাদি।মেয়েরা বিদেশ থেকে এনে দিয়ে থাকবে।দেওয়ালে ঝুলছে কাকু আর আণ্টির ছবি।যৌবনে দারুণ দেখতে ছিল আণ্টী।একটু খুড়িয়ে চলে,কালো চুলের মাঝে কিছু রূপোলি রেখা, না হলে আণ্টিকে এখনো বেশ দেখতে।চুলে কিসব মাখে অনেকে আণ্টি সম্ভবত ষে সব ব্যবহার করে  না। ফিজিও থের‍্যাপিস্ট দিয়ে ম্যাসাজ করালে হয়তো ভাল হয়ে যেতে পারে।নীরেনদা অনেক বাড়ীতে ম্যাসাজ করতে যায়।কিন্তু নীরেনদাকে বলা যাবে না। খুব অসভ্য নীরেনদা।শেষে তার বদনাম হয়ে যাবে।লতিকা চা নিয়ে ঢুকল, পিছনে আণ্টি।চায়ের কাপ এগিয়ে দিয়ে অদ্ভুত চোখে লতিকা দেখল রত্নাকরকে।মনে হল ওর উপস্থিতি পছন্দ হয়নি। দেখার কি আছে আমি তোমার কাছে এসেছি?মনে মনে ভাবে রত্নাকর।আণ্টি সোফায় বসে বলল,নে চা খা।  
চায়ে চুমুক দিতে দিতে ভাবে,কথাটা আণ্টিকে  বলবে কিনা?অনেক মেয়ে ফিজিও আছে।আণ্টি জিজ্ঞেস করে,কিরে কি ভাবছিস?
--ম্যাসাজ করালে তোমার পা ভাল হতে পারে।
--কে ম্যাসাজ করবে তুই?
--ঝাঃ মেয়েদের জন্য মেয়ে ফিজিও থেরাপিস্ট আছে।নীরেনদার কাছে এক্টু-আধটু শিখেছি।
আণ্টি হেসে বলল,টাকা লাগে না?
--তোমার মেয়েরা ডলার পাঠাচ্ছে।তোমার টাকার অভাব?
--ডলার দিয়ে কি সব হয়?রঞ্জাআণ্টি কি যেন ভাবে তারপর বলল,এই বয়সে ম্যাসাজ করিয়ে আর কতটুকু উন্নতি হবে?
--করিয়ে দেখো না।কাজ না হলে করাবে না।
আণ্টি রত্নাকরের দিকে তাকিয়ে কি যেন ভাবছেন।অস্বস্তি বোধহয়,চোখ নামিয়ে নিল।   চা খাওয়া হয়ে গেছে এবার ওঠা যেতে পারে।
মিট্মিট করে হাসে আণ্টি।মেয়েদের এই হাসি দেখলে গা ছমছম করে। কাপড়টা হাটু অবধি তুলে বলল, তুই একটু ম্যাসেজ করনা।
হাটু অবধি অনাবৃত পা দেখে  শরীরের মধ্যে কেমন শিরশির করে উঠে,দৃষ্টি নামিয়ে বলল, আমি ভাল পারিনা--।
--যা পারিস তুই কর।
মুখের উপর না বলতে পারে না।ফর্সা নির্লোম গদার মত পা একটু ফোলা ফোলা পায়ের দিকে তাকিয়ে বলল, পা-টা সোজা করতে হবে।
রঞ্জা আণ্টি পা-টা সোফায় বসে সোজা করতে চেষ্টা করে,পারেনা।পা-টা কাঁপছে দেখে  দু-হাতে পা-টা ধরে কোলে তুলে নিল।উরুর উপর রাখতে গিয়ে একেবারে ধোনের উপর আণ্টির গোড়ালী। মালাইচাকিতে মৃদু চাপ দিয়ে বলল,ম্যাসাজ অয়েল হলে ভাল হত।
--অত ভাল হবার দরকার নেই।এমনিই কর।
রত্নাকরের  কোলের উপর পা-টা রাখতে চমকে ওঠেন সুরঞ্জনা মুখার্জি।সুখোরটা দেখেছে মনে হয় না এত বড়।গোড়ালি দিয়ে বোঝার চেষ্টা করে,ছ-সাত ইঞ্চির কম হবে না।এইটুকু ছেলের এত বড়?  
রত্নাকর ধোনের উপর গোড়ালীর চাপ অনুভব করে কিন্তু কি করবে বুঝতে পারে না। চোখ তুলে তাকাতে দেখল আণ্টির মুখে স্মিত হাসি,লজ্জা পেয়ে চোখ নামিয়ে নিয়ে হাটুর উপর হাত বোলায়।কি নরম আণ্টির পা,আঙ্গুল ডুবে যায়।কিছুক্ষন ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে হাটুর চারপাশে ম্যাসাজ করার পর বলদেব ধীরে ধীরে হাটু ভাজ করার চেষ্টা করে।সুরঞ্জনা আতকে উঠে বললেন,উরি-উরি কি করছিস?বা পা-টা ভাজ করতে পারিনা।
--একটু কমেনি?
--একদিনে কমে নাকি?তবে বেশ ভাল লাগছে।তুই তো ভালই ম্যাসেজ করিস।
--যারা ফিজিও তারা আরো ভাল করবে।
মনোযোগ দিয়ে ম্যাসেজ করি।সুরঞ্জনা সোফায় হেলান দিয়ে অপলক দৃষ্টিতে রত্নাকরকে দেখতে থাকেন।কলেজে পড়ে কিন্তু একেবারে ছেলে মানুষ।
--তুই নাকি গল্প লিখিস?সুরঞ্জনা আচমকা জিজ্ঞেস করেন।
রত্নাকরের হাত থেমে গেল।মাথা নীচু করে লাজুক হাসে।
--কোথাও ছাপা হয়েছে?
--একটা প্রতিযোগিতায় দিয়েছিলাম।প্রথম হয়েছে,ওদের পত্রিকায় ছাপা হয়েছে।
--তোর অনেক গুণ।আমার উপর তোর খুব মায়া,তাই নারে?
সুরঞ্জনাকে সত্যিই খুব ভাল লাগে।এমন আপন জনের মত কথা আগে কোনো বয়স্ক মহিলা তাকে বলেনি।ধোনের উপর গোড়ালীটা রয়েছে,রত্নাকর বলল,না মানে তুমি একা একা থাকো--।
--তুই তো আসতে পারিস মাঝে মাঝে।
--কলেজ থাকে আবার ট্যুইশনি আছে--।
--কাকে পড়াশ?
--মিলিটারী আণ্টির মেয়েকে পড়াই।
--মিলিটারী আণ্টি মানে মুন্মুন?সাবধানে থাকিস মহিলার স্বভাব ভাল না।
ভাল লাগে না কথাটা।মিলিটারী আণ্টি একটু মেজাজী কিন্তু খারাপ মনে হয়নি কখনো।
--কিরে আসবি তো নাকি ভুলে যাবি?
--আণ্টি আজ আসি?
রত্নাকর পা-টা ধরে আলতো করে নীচে নামিয়ে দিল।সুরঞ্জনা বললেন, তুই কিন্তু কথা দিয়েছিস আমাকে দেখবি।দাড়া তোর নম্বরটা দেতো।
সুরঞ্জনার মনে হল ব্যথা নয়া কমলেও বেশ লাগছে।রত্নাকর বেরিয়ে গেলে লতিকা এসে জিজ্ঞেস করে,রত্না আসছিল ক্যান?
সুরঞ্জনা বিরক্ত হয় বলে,তুই ওকে চিনিস?
--চেনব না ক্যান?ওতো আমাদের পাড়ায় থাকে।একটা বলদ।
--তুই খুব চালাক?তোর রান্না হয়েছে?রান্না হলে স্নান করে নে।তোর হলে আমি স্নানে যাব।
অনেক দিন আগের ঘটনাটা মনে পড়তে হাসি পেয়ে যায়।লতিকা ষেসব কথা বলে না।
-- বোউদি একটু শ্যাম্পু দিবেন,চুলি জট পাকায়ে গেছে।
--এমন করে বলছিস যেন তোকে শ্যাম্পু দেওয়া হয়না?
--আপনে না থাকলি উত্থায় ভাইসে যেতাম--।  
--আচ্ছা লতু তোর স্বামী চলে গেছে।তোর খারাপ লাগেনা?
ললিতা ফিক করে হেসে বলল,আহা খারাপ নাগার কি আছে।আমি তারে সুখ দিবার পারি নাই তাই গ্যাছে।খাইদাই সুখি আছি গ্যাছে তো ভাল হইছে।য্যাখন ছেল বাজার-ঘাট সব আমিই করতাম।কামের মধ্যে ওই একটাই কাম।
লতিকাকে বেশি প্রশ্রয় দেওয়া ঠিক হবে না,কোন ক্থায় কি বলে ঠিক নেই।  সুরঞ্জনা মুখার্জির মনে একটা চিন্তা ঘুরঘুর করে।কত বয়স হবে কুড়ি-বাইশ?ঐটুকু ছেলের অত বড়?লতিকার দিকে তাকিয়ে বললেন,তুই দাঁড়িয়ে আছিস কেন,স্নানে যা।  

রঞ্জাআণ্টির পা-টা খুব নরম।ক্লাসে নীরেনদাকে ম্যাসেজ করেছে কিন্তু কোনো মহিলার শরীর কখনো আগে টেপেনি।আসন দেখাবার সময় নীরেনদা দুষ্টুমী করে বলদেবের ধোনে টিপে দিয়েছে কিন্তু আজ মনে হল আণ্টি পায়ের গোড়ালি দিয়ে ধোনে চাপ দিচ্ছিল।খুব লজ্জা করছিল,যে দেখেছে বলেছে তার ধোন নাকি স্বাভাবিকের চেয়ে বড়।ক্লাসে জাঙ্গিয়ার উপর শর্ট প্যাণ্ট পরে।জাঙ্গিয়ার তলা দিয়ে বাড়াটা বেরিয়ে যায়। আণ্টি কি ভাবল? ফ্লাট থেকে বেরিয়ে রত্নাকরের  মনে কথাগুলো আন্দোলিত হয়।অনেকদিন আগের কথা রেললাইন ধরে হাটতে হাটতে স্কুল থেকে ফিরছে।হিসির বেগ হতে এদিক-ওদিক তাকিয়ে রেল লাইনের পাশে ঝোপের কাছে গিয়ে সবে ধোন বের করেছে অমনি জঙ্গল ফুড়ে উঠে দাঁড়ায় লতিকা।সম্ভবত বাহ্যে বসেছিল,না উঠলে ওর গায়ে হিসি করে দিত।লতিকা মুখ ঝামটা দিয়ে খিচিয়ে ওঠে,কপালে চোখ নাই ড্যাকরা?যেখানে ইচ্ছে হল শাবল বের করে দাড়ায়ে গেলাম।এটটু হলি ভিজোয়ে দিত।
পেচ্ছাপ বন্ধ হয়ে গেছে কাচুমাচু হয়ে বলদেব বলল,বিশ্বাস করো আমি দেখিনি।
যেতে যেতে পিছন ফিরে দেখে লতিকার পাশে আরেকটা বউ,দুজনে খিল খিল করে হাসছে।কত বছর আগের কথা লতিকার কি মনে আছে?লতিকা নিশ্চয় দেখেছে,না-হলে শাবল বলল কেন?
কোথায় যেন পড়েছিলেন,নিয়মিত সেক্স করলে শরীর-মন চাঙ্গা থাকে।স্নায়ু কোষ সতেজ হয়।রোগ ব্যাধি কাছে ঘেষতে পারে না।সুখো চলে যাবার পর তার শরীর ভাঙ্গতে থাকে।কয়েকটা বছরে মনে হয় কত বছর পার হয়ে এসেছেন।সুরঞ্জনা আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে দেখেন।পেটে মেদ জমেছে।একটা কথা মনে উকি দিতে লজ্জা পায় সুরঞ্জনা।ছিঃ বাচ্চা ছেলে,পলি মলির চেয়েও বয়সে ছোট।পলি মলি দুজনেই এখন স্টেটসে থাকে।পলির এক ছেলে এক মেয়ে মলির এক মেয়ে।লতিকা বলছিল বলদ। আসলে ছেলেটা সরল সোজা সাপ্টা।লতিকার কাছে ওর সরলতাকে বোকামী মনে হয়েছে।আসবে বলেছে সত্যি আসবে তো?মোবাইল নম্বর নিলেও ফোন করার কথা সুরঞ্জনা ভাবতে পারেনা।পলি মলি রাতে ফোন করে,ওদের সঙ্গেই যা ফোনে কথা হয়।আর কখনো সখনো লতিকাকে ফোন করেন।আজকাল সবার কাছেই মোবাইল।লতিকার খুব ফোন আসে,কারা করে কে জানে?



Last edited by kumdev on Mon Oct 03, 2016 10:24 pm; edited 17 times in total
avatar
kumdev

Posts : 55
Join date : 2014-06-06
Age : 67
Location : Kolkata

View user profile

Back to top Go down

Share this post on: Excite BookmarksDiggRedditDel.icio.usGoogleLiveSlashdotNetscapeTechnoratiStumbleUponNewsvineFurlYahooSmarking

জীবনের অন্যপৃষ্ঠা /কামদেব :: Comments

avatar

Post on Sun Oct 02, 2016 12:40 am  kumdev



[২৭]


অনার্স ক্লাস শেষ,আর দুটো ক্লাস আছে।মোবাইলে সময় দেখল,এখন বাসে উঠলে তিন-সাড়ে তিনটের মধ্যে পৌছানো সম্ভব। চারটের সময় যেতে বলেছে,ভাবছে যাবে কিনা? বাস দেখে উঠে পড়ল।ছবিদির সঙ্গে এইখানে দেখা হয়েছিল।বাসে লোক ওঠানামা করছে কম।দুপুর বেলা তেমন ভীড় হয়না।কোথায় নামতে হবে জানা নেই।সেই মহিলা স্যাণ্ডিদের বাড়ী ছাড়িয়ে চলে গেছিলেন।কণ্ডাক্টরকে জিজ্ঞেস করলে কি বলতে পারবে?এইতো স্যাণ্ডিদের ফ্লাট।কিছুক্ষন পর মনে হল ছাড়িয়ে আসেনি তো?উঠে গেটের কাছে গিয়ে কনডাকটরকে জিজ্ঞেস করতে বলল,দেরী আছে,বসুন।রত্নাকর আবার জায়গায় এসে বসল।হঠাৎ কনডাকটর হাক পাড়ে,আশ্রম আশ্রম।রত্নাকরের দিকে তাকিয়ে নামতে ইশারা করে।হুড়মুড়িয়ে নেমে পড়ল।কোথায় আশ্রম?তাকিয়ে দেখল বিশাল চারতলা বাড়ী।নীচে সারি সারি গাড়ী পারকিং করা।
একজন পথচারিকে জিজ্ঞেস করতে ঐ বাড়ীটিই দেখিয়ে দিল।সিড়ি খুজে উপরে উঠে দেখল বিশাল হল।জনা তিরিশেক মহিলা পুরুষ চোখ বুজে ধ্যান করছে।দেওয়ালে জপমালা হাতে মাথায় ঝুটি বাধা এক মহিলার ছবি।হঠাৎ নজর আটকে যায়,রঞ্জনা সেন না?হ্যা-হ্যা স্যাণ্ডির মাসী রঞ্জনা সেন।এতো বড়লোকের জায়গা,হতাশ হয় রত্নাকর।গায়ে সাদা এ্যাপ্রণ মুখ কাপড়ে ঢাকা,চোখ আর কপাল দেখা যাচ্ছে। একজন মহিলা জিজ্ঞেস করল,কাউকে খুজছেন?
কি জন্য এসেছে বলতেই মহিলা রত্নাকরের আপাদ মস্তক চোখ বুলিয়ে একটা ঘর দেখিয়ে দিল।হলের পাশ দিয়ে সেই ঘরে উকি দিয়ে দেখল জনা কয়েক নারী-পুরুষ বসে।এরাও মনে হয় তারই মত চাকুরি প্রার্থি?ঢুকবে কি ঢুকবে না ভাবছে এমন সময় সেই রকম সাদা এ্যাপ্রন গায়ে একজন মহিলা জিজ্ঞেস করল,রিপোর্ট করেছেন?ঐ ঘরে রিপোর্ট করে আসুন।পাশেই আরেকটা ঘরে ঢুকে দেখল টেবিলের ওপাশে একজন মহিলা।ইঙ্গিতে বসতে বলল।
মহিলা নাম বয়স শিক্ষাগত যোগ্যতা কনট্যাক্ট নম্বর লিখে নিয়ে বলল,পাশের ঘরে বসুন।ভাল করে জল খান।বাথরুম পেলে আমাকে এসে বলবেন।
--ম্যাডাম আমি জল আনিনি।
মহিলা মিষ্টি করে হেসে বলল,ঘরেই জল আছে।
ইতিমধ্যে একজন মহিলা এসে বলল,বাথ রুম যাবো।ঐ ঘর সংলগ্ন একটি বাথ রুম দেখিয়ে দেওয়া হল।রত্নাকরের জল পিপাসা পেয়েছিল।ঘরে ঢূকে ফিলটার হতে ঢক ঢক করে জল খেল।বেশ ঠাণ্ডা জল।
নিজের বিশ্রাম ঘরে বসে আম্মাজী মনিটরে চোখ রেখে দেখছেন।এক মহিলা বাথরুম করতে বসেছে।ঘন বালে ঢাকা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছেনা। এক ঘেয়েমী ক্লান্তি এসে গেছে।একটা সিগারেট ধরালেন।আম্মাজী কারো সামনে সিগারেট খান না।অলসভাবে ধোয়া ছাড়ছেন।উঠে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে আপাদ মস্তক দেখে আপন মনে হাসলেন।বাঙালিদের মধ্যে এরকম ফিগার কোথায়?ঘড়ি দেখলেন,সাড়ে-চারটে বাজে। পাঁচটায় হলঘরে যেতে হবে। হঠাৎ মনিটরে চোখ আটকে যায়।ঝুকে দেখতে থাকেন, মেল পারসন।ওয়েপন মেজারমেণ্ট করলেন,২৫/২৬ সিএম।লার্জ পেনিস।একী বাঙালী?সেভ করে রাখলেন।
রত্নাকর বাথরুম সেরে বেরোতে তাকে মেডিকেল টেস্টের জন্য পাঠানো হোল।সেখানে একজন মহিলা ডাক্তার সুচ ফুটিয়ে কিছুটা রক্ত নিল।আগের জায়গায় ফিরে আসতে বলল,কিছু বলবেন?
--এবার কি করব?
--ব্লাড দিয়েছেন?
--হ্যা ব্লাড নিয়েছে।
--তাহলে বাড়ি যান।সিলেক্ট হলে খবর দেওয়া হবে।
--একটা কথা জিজ্ঞেস করব?
মহিলা মুখ তুলে তাকালো।রত্নাকর জিজ্ঞেস করে,আচ্ছা কাজটা কি?
--ইউ হ্যাভ টু সার্ভ দেম হু আর এ্যাফ্লিক্টেড।
হঠাৎ মৃদু গুঞ্জন শুরু হল আম্মাজী আসছেন।রত্নাকর প্যাসেজের একপাশে সরে দাড়ালো। সন্ন্যাসিনীর বেশ,চোখ অর্ধ নিমিলীত,কপাল চন্দন চর্চিত।ধীরে ধীরে হলঘরে প্রবেশ করে দেওয়ালে ছবির পাশে একটা বেদীতে বসলেন।একটু আগের কোলাহল মুহূর্তে স্তব্ধ হয়ে গেল।কেমন যেন ঝিমুনি আসে।রত্নাকরের মনে হল আর দাঁড়ানো ঠিক হবেনা।সিড়ি বেয়ে নীচে নেমে একেবারে রাস্তায়।
সন্ধ্যে হয় হয়।বাসের জন্য অপেক্ষা করে।বাস যাত্রী এই অঞ্চলে কম,প্রায় সবারই নিজের গাড়ী আছে।বাসে উঠে আগের কথাগুলো ভাবার চেষ্টা করে।কেমন চাকরি কি করতে হবে?এ্যাফ্লিক্টেড মানে পীড়িত বা আর্ত।তাদের সেবা করতে হবে।ইণ্টারভিউটাও অদ্ভুত তেমন কোনো প্রশ্ন জিজ্ঞেস করল না।রক্ত পরীক্ষার জন্য রক্ত নিল।একবার বাথরুম করল ব্যস?এখন বুঝতে পারছে তার আসাটাই ভুল হয়েছে।বাস থেকে নেমে অটো ধরতে হয়।রত্নাকর হাটতে শুরু করল।দুটো ক্লাস করা হল না বাসভাড়া গেল মনটা এমনিতেই খারাপ।খুব ক্ষিধে পেয়ে গেছে।যাবার পথে হোটেলে ঢুকে খেয়ে নেবে কিনা ভাবতেই ময়নার কথা মনে পড়ল।এক্টুস ভাত দিল দশ টাকা লিল।হাটার গতি বাড়িয়ে দিল।চোখে জল চলে এল।মায়ের কথা মনে পড়ে।যখন থাকবো না কি হবে তোর?বউয়ের জন্য একজোড়া বালা রেখে গেছে।বউয়ের আশা করেনা,মায়ের দেওয়া স্মৃতি বিক্রির কথা চিন্তা করতে মনের সায় পায়না।
ময়নারা রান্না শুরু করে দিয়েছে।সন্তর্পনে উপরে উঠে গেল।পোশাক বদলে লুঙ্গি পরল।বোতল নিয়ে ঢক ঢক করে জল খেয়ে শুয়ে পড়ে।চোখ ছাপিয়ে জল এসে পড়ে।কিছুক্ষন পর মনে হল কেউ বুঝি দরজায় ঠক ঠক করল।এখানে আবার কে এল?লুঙ্গি ঠিক করে উঠে দরজা খুলে দেখল ময়না দাঁড়িয়ে আছে।আঁচলে ধরা একটা গেলাস।জিজ্ঞেস করে,ছা খাবি?
রত্নাকর কথা বলতে পারেনা।ঠোটে ঠোট চেপে নিজেকে সংযত করে কিন্তু চোখের জল সামলাতে পারেনা।ময়না আঁচল দিয়ে চোখ মুছিয়ে বলল,কান্দিস ক্যানে?
রত্নাকর হেসে হাত বাড়িয়ে চা নিল।ময়না বলল,ঘুমাস না।ভাত হলি দিয়ে যাব।পাঁচ টাকা না দু-টাকা দিলেই হবে।
--ময়না তোমার বিয়ে হয়নি?
-- কেন হবেক নাই?বিয়া করিছি মরদ ছিল,হারামীটা আবার সাঙ্গা কইরল।তাড়ায়ে দিলম।হেসে বলল,ঘুমাস না কিন্তু।ময়না চলে গেল।
খোলা জানলার ধারে বসে চায়ে চুমুক দিতে দিতে মনে হচ্ছে সব দুঃখ গ্লানি যেন ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যাচ্ছে।ময়নার কথায় মন আচ্ছন্ন।এ্দের কত সরল জীবন যাত্রা, আপনাতে আপনি বিভোর কারো সাতে পাচে থাকেনা।গতরে খেটে জীবিকা নির্বাহ করে।রাস্তাঘাটে কখনো সাওতালকে ভিক্ষে করতে দেখেছে মনে করতে পারেনা।তথকথিত ভদ্রলোকেরা কেন যে এদের শান্ত জীবনে হামলা করে ভেবে পায়না।
রত্নাকর উপন্যাসটা নিয়ে বসল।লিখতে লিখতে রাত বাড়তে থাকে।কোনো দিকে খেয়াল নেই।ময়না পাশে এসে দাঁড়িয়ে মুগ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে,কোনো শব্দ করেনা পাছে লেখায় বিঘ্ন ঘটে।শাড়ির গন্ধে রত্নাকর মুখ তুলতে ময়নাকে দেখে জিজ্ঞেস করল,কখন এসেছো?তোমার খাওয়া হয়েছে?
--তুকে দিয়ে খাবো।
রত্নাকর জিজ্ঞেস করল,তুমি আমার জন্য এত করছো কেন?আমাকে তো ভাল করে চেনোই না?
--একটা মানুষ না খাই থাকলে খাওয়া যায়?তুই পারবি?
ময়না চলে গেল,সারা ঘরে ছড়িয়ে দিয়ে গেল একরাশ ভাললাগা।তৃপ্তি করে খেয়ে বাথ রুমে গিয়ে থালা ধুয়ে দরজা বন্ধ করে শুয়ে পড়ল।সারাদিনের ক্লান্তিতে ঘুমে চোখ জড়িয়ে এল।
পঞ্চাদার দোকানে আড্ডা চলছে।রতির কথা কারো মনেই নেই।পঞ্চাদা একসময় জিজ্ঞেস করে,রতির কি হল?ওকে দেখিনা।
শুভ বলল,রতি এখন বড়লোক।বাবুয়া ওকে ফ্লাট দিয়েছে।
--ফালতূ কথা বলিস কেন?তুই দেখেছিস?বঙ্কা প্রতিবাদ করে।
পঞ্চাদা গালে হাত দিয়ে বসে ভাবে জীবন কারো জন্য থেমে থাকে না।একদিন তাকেও ভুলে যাবে যখন থাকবেনা।উমা একটু খোজ খবর নিত।সেও চ্যারিটি নিয়ে মেতে আছে এখন।দোকানে কমই আসে,আসলেও বেশিক্ষন থাকেনা।
হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে গেল,রত্নাকর উঠে বসে। কিসের যেন গোলমাল হচ্ছে বোঝার চেষ্টা করে।মনে হচ্ছে নীচ থেকে আসছে।ঘুম চোখে লুঙ্গিটা কোনোমতে জড়িয়ে দরজা খুলল।হ্যা নীচেই,পুরুষের গলা পাওয়া যাচ্ছে।ময়নার প্রতি কৃতজ্ঞ মন রত্নাকর নীচে নেমে এল।রত্নাকর স্তম্ভিত, একটি মেয়েকে দুজন ছেলে পাজাকোলা করে নিয়ে যেতে উদ্যত।মেয়েটি বলছে,আতে বাইরে যাবো না,ছাড় কেনে।রত্নাকরের মাথায় আগুণ জ্বলে উঠল।সে একটি ছেলের হাত চেপে ধরে বলল,এই ছাড়ো--ছাড়ো।মেয়েটিকে মাটিতে ফেলে দিয়ে ফুসে ওঠে,এই বোকাচোদা তুই কেরে?
--একদম মুখ খারাপ করবে না।
--কি করবি রে?ছেলেটি গালে চড় মারতে উদ্যত হলে রত্নাকর খপ করে হাত চেপে ধরল।
হাত ছাড়াতে চেষ্টা করে কিন্তু বজ্র মুঠিতে ধরা হাত ছাড়াতে না পেরে বলল,এই বোজো আয়তো।
ব্রোজ বলে ছেলেটি পিছন থেকে রত্নাকরের কোমর ধরে টানতে থাকে।ময়না শুয়ে ছিল উঠে এসে পিছনের ছেলেটির হাত চেপে বলল,একজনার সাথে দুইজন কেনে?টানাটানিতে জীর্ণ লুঙ্গি ছিড়ে খুলে যেতে রত্নাকর বেসামাল হয়ে ছেলেটির হাত ছেড়ে দিল।ছেলে দুজন রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা বাইকে চেপে পালিয়ে গেল।ময়না সামনে উলঙ্গ রত্নাকরের ঝুলন্ত ল্যাওড়ার দিকে অবাক চোখে দেখে কয়েক মুহূর্ত, রত্নাকর অস্বস্তি বোধ করে। সম্বিত ফিরতে ময়না এদিক-ওদিক দেখল।সবাই হা-করে চেয়ে আছে। দ্রুত নিজের আচল দিয়ে রত্নাকরের দুহাতে জড়িয়ে ধরে বলল,তু উপরে চল কেনে।রত্নাকরের কোমর জড়িয়ে ধরে উপরে ঘরে নিয়ে গেল।তারপর কোমরে জড়ানো শাড়ির বাকীটা খুলে রত্নাকরের হাতে দিয়ে বলল,তাড়াতাড়ি কর কেনে।
রত্নাকর হা করে তাকিয়ে থাকে।ময়নার পরনে কেবল জামা আর পেটিকোট।ময়না ফিক করে হেসে বলল,কি দেখছিস? শাড়ীটা দিবি নাকি উদলা হয়ে থাকব?
রত্নাকর ম্লান মুখে বলল,আমার আর লুঙ্গি নেই।
ময়নার মুখটা করুণ হয়ে যায়।তারপর মুখ ঝামটা দিয়ে বলল,তুই কেনে লিচে নামতে গেলি?
--আমি ভাবলাম বুঝি কেউ তোর উপর--।
--আমারে তোর খুপ পছন্দ?ময়না হেসে বলল,ঠিক আছে শাড়ীটা পরে ঘুমা কাল দিয়ে দিবি।
--ওরা ওকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছিল?
রত্নাকরের প্রশ্নে হতবাক ময়না বাবুটা কি বুইলছে?মাগী লিয়ে কি করে জানেনা?তারপর উদাস গলায় বলল,মেয়ে মানুষের শরীল তাদের শত্রু।তুই ঘুমা কেনে।ময়না নীচে চলে গেল।
রত্নাকর ভাবে বেশ সুন্দর বলল তো কথাটা।নিজের শরীরই নিজের শত্রূ।
খবর পেয়ে পরদিন সকালে বাবুলাল সিং এসেছিল।রত্নাকরকে ডেকে নিজের মোবাইল নম্বর দিয়ে বলল, ভাইয়া কিছু হলে আমাকে খবর দেবেন।তারপর ফুলমণিকে ডেকে একটা চাবি দিয়ে বলল,শোন আজ থেকে উপরে এই ঘরে তোরা শুবি।নীচে শোবার দরকার নেই।
বাবুয়া লোকটি বেশ বুদ্ধিমান।সে বুঝতে পেরেছে গোলমালের কারণ কি?সেটা বুঝেই মেয়েদের নিরাপদ আস্তানার ব্যবস্থা করে দিল। রত্নাকরের পাশের ঘরে ওদের থাকার ব্যবস্থা হল।



Last edited by kumdev on Sun Oct 02, 2016 12:56 am; edited 1 time in total

Back to top Go down

avatar

Post on Sun Oct 02, 2016 12:48 am  kumdev



[২৮]


সবাই ময়নাকে নিয়ে ঠাট্টা তামাশায় মেতে ওঠে।ময়না মিট্মিট হাসে কিছু বলেনা।মিস্ত্রি উপর থেকে হাক পাড়ে,কেয়া মাজাক হোতা,ইটা লে আও।একজন বলল,বাবুটো নাএলি বাতাসীকে লিয়ে যেত লিয্যস।রত্নাকর কলেজে বেরিয়ে গেল।ময়নার শাড়ী জলকাচা করে মেলে দিয়েছে ছাদে।বিকেলে এসে ফেরত দিয়ে দেবে।
ক্লাস হচ্ছে একের পর এক।সব ক্লাসই করে রত্নাকর।কিন্তু কোনো কথা কানে যায়না।এলোমেলো চিন্তা মাথায় বিজবিজ করে।খালি পেটে ক্লাস করতে কার ভাল লাগে?রাতের খাবার ময়না দেয় কিন্তু ও নিজেই নিজের পেটের জন্য সারাদিন হাড়ভাঙ্গা খাটুনি খাটছে।কতদিন তাকে যোগাবে?টিফিনে বেরিয়ে রাস্তার ধারে একটা চায়ের দোকানে বসল।এককাপ চা আর কোয়ারটার পাউণ্ড রুটি নিয়ে লাঞ্চ সারল। কলেজ ছুটির পর পুরানো পাড়ায় যাবার কথা মনে হল।উমাদার সঙ্গে দেখা হলে কিছু একটা করবে হয়তো।কথায় বলে আউট অফ সাইট আউট অফ মাইণ্ড।সকলেরই ব্যক্তিগত কাজ থাকে।ছুটির পর হাটতে শুরু করল।একটা দুশ্চিন্তা কিছুতেই ঝেড়ে ফেলতে পারছেনা।কলেজ করছে ঠিকই কিন্তু সেকি শেষ পর্যন্ত পরীক্ষা দিতে পারবে?ময়নাকে কিছু টাকা অন্তত দেওয়া উচিত কিন্তু কিভাবে দেবে? মোবাইল বাজতে কানে লাগাতে শুনতে পেল,হ্যালো সোম?
স্যাণ্ডি এতদিন পর,কি ব্যাপার?আবার পড়াতে বলবে নাকি?উৎসাহিত হয়ে বলল,বলো?
--তুমি কোথায়?
--এই তো কলেজ ছুটি হোল।
--তুমি না বললেও আমি জানি বাপি তোমাকে নিষেধ করেছে।আম আই রাইট?
রত্নাকর কি বলবে?আর এতদিন পর এসব কথায় কি লাভ?
--ম্যান প্রপোজেস গড দিজপ্রোপজেস।উই আর হেল্পলেস।রত্নাকর বলল।
রত্নাকরের ভাল লাগেনা এসব কথা বলল,স্যাণ্ডী আমি রাস্তায়,পরে কথা বলব?ফোন কেটে দিল।উমাদার সঙ্গে দেখা হয়না অনেকদিন।ভাবছে একদিন পুরানো পাড়া যতীনদাসে যাবে,উমাদাকে বলবে টিউশনির কথা। কিছুটা হাটতে আবার ফোন বেজে উঠল।কানে লাগিয়ে বলল,প্লিজ স্যাণ্ডী-।ওপাশ থেকে মেয়েলি গলায় ভেসে এল,রিলিফ সোসাইটি।
--হ্যা বলুন।
--ইউ আর সিলেক্টেড। ক্যান ইউ কাম টুমরো এ্যাট এইট এএম?
--ইয়েস ম্যাম।ফোন কেটে গেল।
রত্নাকর ঠাণ্ডা মাথায় ভাবে কাল সকাল আটটায় কিভাবে সম্ভব?কলেজ আছে,তাড়াহুড়ো করে হ্যা বলে দিল।একবার ভাবল রিডায়াল করে বলবে নাকি আটটায় অসুবিধে আছে?আবার মনে হোল শুরুতেই অসুবিধে বললে আবার উলটো ফল না হয়।বরং কাল গিয়ে সরাসরি কথা বলবে।কলেজ কামাই করে রোজ রোজ আটাটায় কি করে যাবে?পড়াশুনার জন্য কাজ।সেই পড়াশুনাই যদি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে কাজ করে লাভ কি? তাছাড়া একমাস পর বেতন হলে এই ক-টা দিন কি ভাবে চালাবে?সম্বল এখন বালাজোড়া। এখনো রাত হয়নি কিন্তু রত্নাকরের চোখের সামনে গভীর অন্ধকার।সর্দার পাড়ার কাছাকাছি আসতে মনে পড়ল,ইস ভেবেছিল পুরানো পাড়ায় যাবে ভুলেই গেছিল।কাল রিলিফ থেকে ফেরার পথে যাওয়া যাবে।
এদিকটা লোকবসতি কম।অঞ্চলটা ধীরে ধীরে গড়ে উঠছে।খোয়ার রাস্তা বাতি স্তম্ভ অনেক দূরে দূুরে।নির্জনতায় নিজেকে নিঃসঙ্গ মনে হয়।অটো চলে কিন্তু একটু বেশি রাত হলে আসতে চায়না।বাড়ী ঘর কম তাই গাছ পালা এদিকটায় বেশি।ওরা রান্না চাপিয়ে দিয়েছে।
রত্নাকর ওদিকে না তাকিয়ে উপরে উঠে তালা খুলে নিজের ঘরে ঢুকে খেয়াল হয় ছাদে
ময়নার শাড়ী মেলা আছে।বই খাতা রেখে ছাদে গেল।শুকিয়ে গেছে,শাড়ি নিয়ে নীচে নেমে শাড়ীটা সুন্দর করে ভাজ করতে থাকে।ময়না চা নিয়ে ঢুকল।সে এসেছে ময়না খেয়াল করেছে।চা নিয়ে শাড়ি এগিয়ে দিতে ময়না জিজ্ঞেস করল,তুই কি পিন্দবি?রেইখে দে লুঙ্গি কিনে ফিরত দিবি।
চায়ে চুমুক দিয়ে রত্নাকর জিজ্ঞেস করে নীচে মনে হল লোক কম?
--চাইর জন আছি।ইখেনে কাজ বেশি নাই, অদের অন্য ছাইটে নিয়া গেছে।
--দাঁড়িয়ে কেন বসবে?
ময়না দেওয়ালে হেলান দিয়ে বসে বলল,তুর সঙ্গে গপ্প করতে ভাল লাগে।তুই বড় ভালা মানুষ।
--কি করে বুঝলে?
--ভালা মানুষ বাছবিচার করেনা।
রত্নাকর ইতস্তত করে বলেই ফেলল,ময়না তোমার ভাতের দাম দেবার টাকা আমার নেই।আমাকে আর ভাত দিওনা।
ময়না হেসে গড়িয়ে পড়ে।রত্নাকর লজ্জায় তাকাতে পারেনা।ময়না বলল,আমার যে মরদটো আছিল কুনো কাম করত না,লিসা কইরে পড়ি থাকত।আমি তারে খাওয়াই নাই?
কিসের সঙ্গে কিসের তুলনা।কোথায় ওর স্বামী আর কোথায় একজন অনাত্মীয় সদ্য পরিচিত রত্নাকর।এই ফ্যারাকটুকু ওকে কি করে বোঝাবে?
--ময়না তোমার কাছে আমার অনেক দেনা হয়ে গেল।
ময়না আড়চোখে রত্নাকরকে দেখে তারপর একটা দীর্ঘস্বাস ছেড়ে বলল,তুই লিখাপড়ি কর।আমি এখন যাই।ময়না চলে গেল।
কালকের কথা ভেবে মন অস্থির।রিলিফ সোসাইটিতে যাবে কি যাবে না এই নিয়ে মনের মধ্যে চলছে নানা টানাপড়েন।প্রথম দিনের অভিজ্ঞতা খুব ভাল নয়,কোন প্রশ্ন নয় শুধু রক্ত নিয়ে ছেড়ে দিল।চাকরির সঙ্গে রক্ত পরীক্ষার কি সম্পর্ক?হতে পারে কোনো অসুস্থ ব্যক্তিকে রক্ত দিতে হবে তার আগে ব্লাড গ্রূপ কি জেনে নিচ্ছে।সকাল আটটা মানে এখান থেকে সাড়ে-ছটার মধ্যে বেরোতেই হবে।ক্লান্তিতে চোখের পাতা লেগে আসে।
রতিদের বাড়ীটা মাঠ হয়ে গেছে।উমানাথ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখে।কোথায় উধাও হল ছেলেটা খুব মনে পড়ে।বেলাবৌদি জিজ্ঞেস করছিল বলতে পারেনি।চ্যারিটি ফাউণ্ডেশনের ব্যাপারটা রতির মাথায় প্রথম এসেছিল।দিবুদাকে একদিন দেখেছিল, জিজ্ঞেস করবে ভেবেও জিজ্ঞেস করার প্রবৃত্তি হয়নি।বাবুয়া মস্তানের সঙ্গে খুব ভাব।একবার মনে হয়েছিল দিবুদার কাছে থাকে নাতো?কিন্তু বেলাবৌদি বলল,না থাকেনা।বিজুদার বন্ধু দিবুদা, সব খবরই বেলাবৌদি পায়।
বাসায় ফিরে উমানাথ দেখল বৌদি তার অপেক্ষায় বসে আছে।উমানাথ হাত মুখ ধুয়ে খাবার টেবিলে বসে।মনীষা দেওরকে খেতে দিয়ে নিজেও বসে গেল।
--রতিদের বাড়ীটার কোনো চিহ্ন নেই।খেতে খেতে বলল উমানাথ।
--রতির কোনো খবর পেলেনা?ছেলেটা রাতারাতি উবে গেল?কেমন বন্ধু তোমরা?মনীষার গলায় ক্ষোভ।
উমানাথ লজ্জিত হয়।ছবিদির কথাটা মনে পড়ল।রতি গেছিল ছবিদির ঘরে,বৌদি সেসব জানেনা।রুটী ছিড়ে তরকারি নিয়ে মুখে পুরে ভাবতে থাকে সেকথা বৌদিকে বলবে কিনা।
--ঐ কি নাম বাবুয়াকে জিজ্ঞেস করতে পারতে?শুনেছি দোকানদারদের অন্য জায়গায় ঘর ঠিক করে দিয়েছে?মনীষা বলল।
--তোমাকে একটা কথা বলিনি।উমানাথ বলল।
মনীষা দেওরের দিকে তাকাল।উমানাথ বলল,ছবিদির কথা মনে আছে?
মনীষা বিরক্ত হয়।হচ্ছে একটা কথা তার মধ্যে ছবির কথা নিয়ে এল।উমানাথ বলল,রতি বলছিল একদিন ছবিদির বাসায় গেছিল।
--ছবির বাসায়?বিস্মিত মনীষা জিজ্ঞেস করে,ছবির বাসায় কি করতে গেছিল?
--রতিকে সব বলেছে ছবিদি।কেন ঐ পথে যেতে বাধ্য হয়েছে,শ্বশুরবাড়ীর কথা, নরেশদার বাড়িতে কি হয়েছিল--সব।
মনীষার মুখে কথা যোগায় না।রতির মুখটা মনে পড়ল।কেমন মায়া জড়ানো মুখ।নিজের সমস্ত দুঃখ কষ্টকে সরিয়ে রেখে কেবল অন্যের কথা ভাবতো।
--ভাবছি ছবিদির খপ্পরে--।
মনীষা হাত তুলে দেওরকে বিরত করে।রতিকে যতদুর জানে জ্ঞানত কোন পাপে জড়াবার ছেলে ও নয়।কোথায় আছে কি খাচ্ছে কে জানে।
ময়না ভাত নিয়ে দরজায় ধাক্কা দিতে খুলে গেল।ভিতরে ঢুকে জিজ্ঞেস করে,দরজা বন্ধ করিস নাই?
রত্নাকর উঠে বসল।হেসে বলল,বাজে কাঠ বেকে গেছে।ছিটকিনি লাগানো যাচ্ছেনা।ঘরে কিইবা আছে?
--খেয়ে নে।ময়না মনে মনে বলল,ঘরে তুই আছিস।
--আবার ভাত এনেছিস?
--অং করিস না।খেয়ে নে,সময় হলে দেনা উসুল করি নেবো কেনে।ময়না মুচকি হাসে।
রত্নাকর মুখে গরাস পুরে জিজ্ঞেস করে,এখানে এখন কতজন আছে?
--মুকে লিয়ে চারজন।
-- সবাইকে নিয়ে গেল কেন?
--বিকের কাজ নাই এখুন শুধু পেলাস্টার হবে।যাই অনেক কাজ আমার।ময়না চলে যাবার জন্য উঠে দাড়ায়।
রত্নাকর বলল,তোমার কথা বলার ফুরসৎ নেই আমার কাজ নেই।
ময়না চকিতে ঘুরে দাড়ায়,অদ্ভুত দৃষ্টিতে রত্নাকরকে দেখে বলল,কি কথা বলবি?ঠিক আছে আতে আইসব?
রত্নাকর ভাত মুখে নিতে গিয়ে থেমে গেল,মাথা উচু করে দেখল করুণ চোখে তাকিয়ে আছে ময়না।কেমন মায়া হয় তবু বলল,যদি কিছু হয়ে যায় তোমার বদনাম হবে।
--কিছু হবেক নাই।দাওয়াই আছে না?
--আমার পয়সা নেই ময়না।
--ময়না তুর কাছে কখনো পয়সা চেয়েছে?কি বল আইসবো?
রত্নাকরের মাথার মধ্যে দপদপ করে বলল,আমি জানি না,ইচ্ছে হলে আসবে।
--আইতে কথা হবে।ময়না চলে গেল।
ময়না চলে যেতে প্রাণভরে শ্বাস নিল।রত্নাকর কি করবে বুঝতে পারেনা।বেচারি এমনভাবে বলল মুখের উপর আপত্তি করতে পারেনা।খাওয়া দাওয়ার পর থালা ধুয়ে শুয়ে পড়ল।ঘুম আসেনা অস্থির লাগে।এই বুঝি ময়না ঢুকলো।ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে পড়ল রত্নাকর।
গাছের পাতায় জমাট অন্ধকার।ঝিঝি পোকার একটানা শব্দ।রাত গড়াতে থাকে।দুরে কোথাও রাতচরা পাখি ডেকে উঠল।হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে যেতে রত্নাকর অনুভব করে বুকের উপর কি যেন ভারী একটা চাপানো।দম বন্ধ হয়ে আসার উপক্রম।রত্নাকর হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরে বলল,কে-কে?
ফিস ফিসানি শুনতে পাওয়া গেল,আমি ময়না।
রত্নাকর পিঠ থেকে পাছা অবধি হাত বুলিয়ে দেখল একেবারে নগ্ন।করতলে পাছার বলে চাপ দিল।
--আরো জুরে আরো জুরে।ময়নার গলা পাওয়া যায়।
মাংসল স্তন রত্নাকরের বুকে পিষ্ঠ করতে থাকে।একসময় হাপিয়ে উঠে বসে শরীরের উপর থেকে নেমে রত্নাকরের দু-পায়ের ফাকে বসে নীচু হয়ে ল্যাওড়াটা মুখে পুরে নিল।রত্নাকর শুয়ে ময়নার ঘন চুলে আঙুল ঢুকিয়ে বিলি কাটতে লাগল।চুপুত-চুপুত করে চুষতে চুষতে ল্যাওড়া একেবারে শক্ত কাঠের মত।লালায় মাখামাখি,ময়না নাকে মুখে চোখে পাগলের মত ঘষতে লাগল।তারপর উঠে বসে ল্যাওড়া ধরে নিজের মাঙ্গে ঢোকাতে চেষ্টা করে।রত্নাকর উঠে বসে ময়নাকে চিত করে ফেলল।তারপর এক পা ধরে উপর দিকে ঠেলে তুলতে মেটে সিন্দুর রঙের ভগাঙ্কুর বেরিয়ে পড়ল।তর্জনি মৃদু বোলাতে ময়না হিসিয়ে ওঠে।হাটূ গেড়ে বসে চেরার মুখে লাগিয়ে অল্প চাপ দিয়ে বুঝতে পারে,গুদের মুখ বেশ চিপা।অন্য পা ধরে চাপ দিতে গুদ ঠেলে ঊঠল।ময়না তাকিয়ে দেখছে রত্নাকরের কার্যকলাপ।
আচমকা মাথা ধরে বুকে চেপে ধরল।নরম মাংসল বুকে যেন হারিয়ে যাচ্ছে রত্নাকর।বুক থেকে মুখ তুলে ল্যাওড়া চেরার মুখে লাগিয়ে চাপ দিতে পিচপিচ করে ঢুকতে লাগল। ময়না হুউউই মারাং বুরু বলে কাতরে উঠল।চোখের কোলে জল চলে আসে।কিন্তু দু-হাতে রত্নাকরের কোমর ধরে নিজের দিকে টানতে লাগল।দুই বগলের তলা দিয়ে হাত ঢুকিয়ে রত্নাকরের কাধ ধরে আছে ময়না। বেশ পরিশ্রম হচ্ছে রত্নাকরের কিছুক্ষন পর যখন গুদে জল কাটা শুরু হোল তখন পিচ্ছিল পথে অতটা কষ্ট হচ্ছেনা।ঘষায় ঘোষায় চেরায় আগুন জ্বলছে।মাংটা ভরে গেছে ভচর-ভচর করতেছে নুড়াটা। কখন থামবে রত্নাকর অবাক হয়ে ভাবছে ময়না।বলল,তুর এত দেরী হয়?চুদতে চুদতে ভোরের আবছা আলো জানলা দিয়ে ঘরে এসে পড়ে।স্বল্প আলোয় ময়নার শরীর স্পষ্ট হয়।লিঙ্গমূলে বেদনা বোধ হয়,এবার বেরোবার সময় হয়ে এল।ময়না ভাবছে উরা না জেগে যায়।অনুভব করে গুদের খোল পুচুক পুচুক করে উষ্ণ তরলে ভেসে যাচ্ছে।গুদের নরম চামড়ায় উষ্ণ বীর্যপাতে সারা শরীরে শিহরণ খেলে গেল। ময়নার মুখে হাসি ফোটে।সেদিন রাতে নুড়াটা দেখা অবধি ভিতরে নেবার সাধ হয়িছিল।বাবুটা খুব যতন লিয়ে করে,বড় সোখ দিয়েছে বটে।

Back to top Go down

Post   Sponsored content

Back to top Go down

Page 2 of 2 Previous  1, 2

View previous topic View next topic Back to top


 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum